নামমাত্র মূল্যে টেলিটকের ইন্টারনেট পাবে শিক্ষার্থীরা

দেশের পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রাখার জন্য নামমাত্র মূল্যে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ দেবে রাষ্ট্রায়াত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক।
 
বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) পরিচালিত বিডিরেন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহারকারী দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এই সুবিধা পাবে।

করোনাকালে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম এগিয়ে নিতে এ বিষয়ে ইউজিসির আহ্বানে টেলিটক সাড়া দিয়েছে বলে বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) জানায় কমিশন।
 
ইউজিসি জানায়, বর্তমানে দেশের ৪২টি পাবলিক ও ৬৮টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিডিরেন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করছে। শিক্ষার্থীরা জুম অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে অনলাইনে ক্লাসে অংশ নিতে পারবে। এজন্য শিক্ষার্থীদের টেলিটকের নেটওয়ার্কের আওতায় থাকতে হবে। প্রতিমাসে ১০০ টাকা রিচার্জের বিনিময়ে এই সুবিধা পাওয়া যাবে। রিচার্জ করা টাকা তার মূল অ্যাকাউন্টে জমা হবে। এই টাকা ভয়েস কল ও ডাটার জন্য ব্যয় করা যাবে। অব্যবহৃত টাকা পরবর্তী রিচার্জে যোগ হবে। তবে ১০০ টাকার নিচে রিচার্জ করলে এবং সিমে ন্যূনতম ডাটা না থাকলে এই সুবিধা ভোগ করা যাবে না।  
 
শিক্ষার্থীরা যেন বিনামূল্যে অনলাইন এডুকেশন রিসোর্স ব্যবহার করতে পারে সে লক্ষ্যে বিডিরেন ২১ জুলাই টেলিটকসহ দেশের সব মোবাইল অপারেটরকে চিঠি দেয়। বিডিরেনের এ আহ্বানে সাড়া দিয়ে টেলিটক গত ২৮ আগস্ট সম্মতি দিয়ে একটি চিঠি পাঠায়।
 
চিঠিতে টেলিটক জানায়, জাতীয় এ সংকটে বিডিরেনের মহতী এ উদ্যোগে যুক্ত হতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছে। টেলিটক মনে করে এই উদ্যোগের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বিশাল একটি অংশ অনলাইন ক্লাসের সময় তাদের নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে।
 
এ প্রসঙ্গে ইউজিসি চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, করোনা মহামারির সময়ে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রাখার এ উদ্যোগ অত্যন্ত সময়োপযোগী।
 
নামমাত্র মূল্যে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ দেওয়ার উদ্যোগে সাড়া দিয়ে এগিয়ে আসার জন্য তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ এবং টেলিটককে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।
 
দেশের উচ্চশিক্ষা কার্যক্রমকে সচল রাখার জন্য শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ দেওয়ার উদ্যোগে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এবং টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারকে কৃতজ্ঞতা জানান ইউজিসি চেয়াম্যান।
 
শিক্ষার্থীরা যাতে স্বল্পখরচে ডিজিটাল ডিভাইসের অ্যাক্সেস এবং ইন্টারনেট সুবিধা পেতে পারে এ বিষয়ে সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যাপারে সম্প্রতি শিক্ষামন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Please follow and like us:

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.