ফের বাড়ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি: শিক্ষামন্ত্রী

করোনার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি আবারও বাড়ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে অনলাইনে জুম মিটিংয়ে শিক্ষা বিটের সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে একথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী।

এসময় জুম মিটিংয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ গোলাম ফারুক, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মু. জিয়াউল হক যুক্ত ছিলেন।

মতবিনিময়কালে সাংবাদিকেরা ছুটি বাড়ছে কিনা-জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি তো বাড়াতে হবে, তারিখটা আপনাদের জানিয়ে দেবো।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ছুটি ধাপে ধাপে দেওয়া ছাড়া একবছর ছয় মাসের জন্য বন্ধ করে দেওয়া সম্ভব নয়। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আগে খুলে দেওয়ার কথা বলেছেন, আমরা সববিষয় বিবেচনায় রেখেই সিদ্ধান্তগুলো নেবো।

বিভিন্ন দেশে সংক্রমণ কম দেখে খুলে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ফের বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আমরা সর্বক্ষণ সারাবিশ্বের দিকে নজর রাখছি। শিক্ষাজীবন যাতে ব্যাহত না হয় সে জন্য যা যা করণীয় তা করার চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, স্কুল খোলার পর কীভাবে চলবে সেজন্য গাইডলাইন নিয়ে কাজ করছি। সরকারে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা আছে, জাতীয় পরামর্শক কমিটির সঙ্গে বৈঠক করেছি।

‘আমরা শিক্ষার্থীদের জীবন সুরক্ষিত রেখে এবং স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়িয়ে যেতে পারি, সে নিয়ে আমরা ভাবছি। সবাই একসঙ্গে কাজ করতে হবে। সবারই সহযোগিতা প্রয়োজন। ’

অলোচনায় অংশ নিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটির বিষয়ে বৃহস্পতিবারের মধ্যে একটা সিদ্ধান্ত হবে, এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে কথাও হয়েছে।

চলতি বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর ২৬ মার্চ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত ৬৬ দিনের সাধারণ ছুটি শেষে ৩১ মে সীমিত পরিসরে অফিস ও ১ জুন থেকে গণপরিবহন খুলে দেওয়া হয়।

আর ১৭ মার্চ হতে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছে সরকার। মহামারির কারণে কয়েক দফা বাড়িয়ে গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো হয়েছে।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *